চিত্রা নদীর পারে

তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত ১৯৯৮ সালের বাংলাদেশী বাংলা চলচ্চিত্র

চিত্রা নদীর পারে তানভীর মোকাম্মেল পরিচালিত ১৯৯৮ সালের বাংলাদেশী চলচ্চিত্র। ১৯৪৭ সালের দেশবিভাগ তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে হিন্দুদের জীবনে যে প্রভাব ফেলেছিল, তা এই ছবিতে দেখানো হয়েছে। কাহিনীর শুরু ১৯৪৭ থেকে এবং শেষ হয় ৬০'-এর দশকে। অভিনয় করেছেন মমতাজউদ্দীন আহমেদ, আফসানা মিমি, তৌকির আহমেদ, রওশন জামিল, সুমিতা দেবী প্রমুখ। ছবিটি বিভিন্ন দেশের চলচ্চিত্র উৎসবে প্রদর্শিত হয় এবং ২৪তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রসহ সাতটি বিভাগে পুরস্কার লাভ করে।

সালমা: জানিস...ছোটবেলায় একটা ব্যাপারে তোকে আর বিদ্যুৎকে আমি আর নাজমাবু আড়ালে ক্ষেপাতাম।
মিনতি: কী নিয়ে?
সালমা: তোরা কাইচিকে ‘কেচি’ বলতিস। আরও কী সব অদ্ভুত....না থাক...।
মিনতি: বল না।
সালমা: শুনলে হাসবি না তো? .... আমরা মনে করতাম কালো পিঁপড়াগুলো ভালো, ওগুলো কামড়ায় না, তাই মুসলমান...আর লাল পিঁপড়াগুলো হিন্দু...ওগুলো কামড়ায় তো...। আমরা কী ছেলেমানুষ ছিলাম রে!
মিনতি: হয়তো এখনো আছি।

   

পরের জায়গা পরের জমি
ঘর বানাইয়া আমি রই,
আমি তো সেই ঘরের মালিক নই
আমি তো সেই ঘরের মালিক নই।।

   

ওপেনটি বায়েস্কোপ
নাইন টেন ট্রায়োস্কোপ
চুল টানা বিবিয়ানা
সাহেব বাবুর বৈঠকখানা
লাট বলেছে যেতে
পান সুপারি খেতে
পানের আগায় মরিচবাটা
ইস্কাবনের ছবি আঁকা
ছোট ছোট জাদুমণি
যেতে হবে অনেকখানি
কলকাতা...কলকাতা...কলকাতা

ওপেন টু বাইস্কোপ খেলার সময় শিশুদের আবৃত্তি করা ছড়া-গান।

বহিঃসংযোগ

সম্পাদনা